এক নজরে নোবেল শান্তি পুরস্কার

nobel-prize
১৮৯৫ সালে সুইডেনের বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেল মৃত্যুর পূর্বে একটি উইল-এর মাধ্যমে নোবেল পুরস্কার প্রচলন করেন। এই উইল-এর দলিলে তিনি পাঁচটি বিষয়ে পুরস্কারের জন্য তাঁর সম্পত্তির সিংহভাগ বরাদ্দ করে যান। বিষয়গুলো হল: পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, চিকিৎসাবিজ্ঞান ও শরীরতত্ত্ব, সাহিত্য, এবং শান্তি। ১৯০১ সাল থেকে সারা বিশ্বের বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে উল্লেখিত পাঁচটি শাখায় অনন্য কৃত্ত্বিত্ব তথা গবেষণা, উদ্ভাবন এবং মানবকল্যাণমূলক অসাধারণ কর্মকাণ্ডের জন্য এই পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে। নোবেল যখন তাঁর উইলের পরিকল্পনা করেন, তখন নরওয়ে সুইডেনের শাসনাধীন ছিল। নোবেলের ইচ্ছানুসারে শুধুমাত্র শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয় অসলো, নরওয়ে থেকে। বাকি ক্ষেত্রে স্টকহোম, সুইডেন থেকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। বিস্তারিত 

তেল উৎপাদনে শীর্ষ ১০ দেশ

petroleum1

বিশ্ব অর্থনীতিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে তেল। তাই তেল সমৃদ্ধ দেশগুলোর অর্থনৈতিক অবস্থান দৃঢ় ও মজবুত। যে কোন দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি, বিদ্যুৎ, কলকারখানা এবং যানবাহনের শক্তির (energy) অন্যতম উৎস খনিজ তৈল বা পেট্রোলিয়াম। দুর্ভাগ্যবশতঃ এই প্রাকৃতিক খনিজ তৈলের অধিকারী বিশ্বের হাতেগোনা কয়েকটি দেশ। বিশ্বের অনেক দেশকে তেলের জন্য প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর ওপর নির্ভর করতে হয়। ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সির (আই.ই.এ) তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের মোট উৎপাদিত তেলের অধিকাংশ উৎপাদন করে উৎপাদনে শীর্ষে থাকা দশটি দেশ। বিস্তারিত 

মাদার তেরেসা (১৯১০-১৯৯৭)

Mother Teresa

মহীয়সী নারী মাদার তেরেসা আর্তমানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করে সারাবিশ্বের মানুষের হৃদয়ে আজো অমর হয়ে আছেন। আলবেনিয়ান বংশোদ্ভুত মাদার তেরেসা রোমান ক্যাথলিক সম্প্রদায়ভুক্ত বিশ্বখ্যাত সমাজসেবিকা। তাঁর জন্ম ১৯১০ সালের ২৬ আগস্ট আজকের মেসিডোনিয়ার স্কোপিয়ে, মৃত্যু ১৯৯৭ সালের ৫ সেপ্টেম্বর কলকাতার মাদার হাউসে। ১৯৫০ সালে কলকাতায় তিনি মিশনারিজ অফ চ্যারিটি নামে একটি সেবাপ্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেন। সুদীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে তিনি দরিদ্র, অসুস্থ, অনাথ ও মৃত্যুপথযাত্রী মানুষের সেবা করেছেন। ১৯৭৯ সালের ১৭ অক্টোবর তিনি তাঁর সেবাকার্যের জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কার ও ১৯৮০ সালে ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান ‘ভারতরত্ন’ লাভ করেন।

বিস্তারিত 

তেজস্ক্রিয়তা

[ভূমিকা – সংজ্ঞা – পরিমাপ – আয়ু – উৎস – ব্যবহার – প্রভাব – প্রতিকার ও চিকিৎসা – শেষকথা]

ভূমিকা

radioactive_warning_sign

‘তেজস্ক্রিয়তা’ শব্দটি বিজ্ঞানের বিষয় হলেও ১৯৮৬ সালে চেরনোবিল দুর্ঘটনার পর এটি প্রথমবারের মত সাধারণ মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ‘তেজস্ক্রিয়তা’ এখন দৈনন্দিন বিজ্ঞানের অংশ। তবে দুঃখজনক হলেও সত্যি যে বেশিরভাগ আলোচনায় (পত্র-পত্রিকা, ব্লগ ও ফোরাম) তেজস্ক্রিয়তাকে কখনো অতিরঞ্জিত, কখনও অস্পষ্ট, আবার কখনও ভুলভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। তেজস্ক্রিয়তাকে বুঝতে হলে বিজ্ঞানের ছাত্র হওয়ার প্রয়োজন নেই, এর সম্পর্কে মৌলিক ধারণার জন্য প্রয়োজন একজন সচেতন নাগরিকের জানার ইচ্ছা ও আগ্রহ। ইদানীং বিশেষ করে বিদ্যুৎ উৎপাদনে পারমাণবিক চুল্লীর ব্যবহারের কারণে তেজস্ক্রিয়তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হয়ে থাকে। বিস্তারিত 

বিশ্বের বৃহত্তম

বিশ্বের বৃহত্তম সাগর, দেশ, পাখি, দ্বীপ, মরুভূমি, শহর, বাঁধ, মসজিদ, পর্বত, প্রাণী, প্রাসাদ, পার্ক, অরণ্য,চিড়িয়াখানা, বন্দর, বিল্ডিং, হোটেল, … ইত্যাদি।
বিস্তারিত 

আলবেনিয়া

আলবেনিয়া দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের একটি ক্ষুদ্র পর্বতময় দেশ। এটি বলকান উপদ্বীপের উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত। আলবেনিয়া ইতালি থেকে মাত্র ৭৬ কিলোমিটারের ব্যবধানে অবস্থিত; মাঝে রয়েছে আড্রিয়াটিক সাগর। আলবেনিয়া ইতিহাসে বহুবার পূর্বের ইতালীয় শক্তি ও পশ্চিমের বলকান শক্তির কাছে নত হয়েছে। ১৫শ শতকে আলবেনিয়া উসমানীয় সাম্রাজ্যের অধীনে আসে এবং ১৯১২ সালের আগ পর্যন্ত স্বাধীনতা লাভ করেনি। ১৯৪৪ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এটি একটি সাম্যবাদী রাষ্ট্র ছিল। ১৯৯১ সালে দেশটি গণতন্ত্র ও বাজার অর্থনীতি ব্যবস্থায় ধীরে ধীরে রূপান্তর শুরু করে। তিরানা আলবেনিয়ার বৃহত্তম শহর ও রাজধানী।
আলবেনিয়া: এক নজরে – ভূমিকা – স্বাধীনতাত্তোর আফগানিস্তান – ভূগোলিক তথ্য – জনসংখ্যা ও অধিবাসী – সরকার পদ্ধতি – অর্থনীতি – বিদ্যুৎ ও জ্বালানী – যোগাযোগ – ফটো গ্যালারী বিস্তারিত 

বুদ্ধি, ধৈর্য্য এবং জ্ঞান – ৩

বুদ্ধি হলো সহজাত মানসিক ক্ষমতা আর জ্ঞান হলো অর্জিত বিদ্যা। বিদ্যা ও বুদ্ধি দুটিই যাচাইয়ের জন্য ৩০টি প্রশ্ন দেওয়া হল। সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করতে হবে। প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়ার জন্য প্রয়োজন হবে বুদ্ধি, ধৈর্য্য এবং জ্ঞান। সরাসরি কোন প্রশ্নের উত্তর দেখার আগে নিজে চেষ্টা করে দেখা উচিত উত্তর/সমাধান বের করা যায় কিনা। এতে সৃজনশীলতা ও কল্পনাশক্তির বিকাশ হবে। বিস্তারিত 

মাচু পিচু : ইনকাদের হারানো শহর

ইনকা সভ্যতা হচ্ছে পৃথিবীর ইতিহাসে হারিয়ে যাওয়া সমৃদ্ধ সভ্যতার মধ্যে অন্যতম একটি। মাচু পিচু হচ্ছে কলম্বাসের আমেরিকা আবিষ্কারের (১৪৯৪ সাল) আগের সময়কার ইনকা সভ্যতার একটি শহর, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে যার উচ্চতা ২৪০০ মিটার (৭,৮৭৫ ফিট)। এটি পেরুর উরুবাম্বা উপত্যকার (Valle de Urubamba) ওপরে একটি পর্বতচূড়ায় অবস্থিত। এটি দক্ষিণ আমেরিকার একটি অন্যতম প্রধান প্রত্নতাত্ত্বিক কেন্দ্র এবং পেরুর সবচাইতে আকর্ষণীয় দর্শনীয় স্থান। বিস্তারিত 

চেরনোবিল পারমাণবিক দুর্ঘটনা

১৯৮৬ সালের ২৬ এপ্রিল স্থানীয় সময় রাত ১টা ২৩ মিনিটে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের ইউক্রেন প্রজাতন্ত্রে অবস্থিত চেরনোবিল পারমাণবিক স্থাপনার চতুর্থ চুল্লিতে দুর্ঘটনা ঘটে। এ পারমাণবিক দুর্ঘটনাকে এ পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ পারমাণবিক দুর্ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করা হয়ে থাকে। বিস্তারিত 

ভারতে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের বাঙালি

বিশেষ করে ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের সময় সাবেক পূর্ব বঙ্গের (বর্তমান বাংলাদেশ) অনেক হিন্দু বাঙালি স্থায়ীভাবে ভারতে পাড়ি জমান। তাঁদের অনেকেই ভারত তথা পশ্চিম বাঙলার শিক্ষা, সাহিত্য, শিল্পকলা, ক্রীড়া, সমাজকল্যাণ ও জনকল্যাণমূলক কাজ, বিজ্ঞান, প্রকৌশল, শিল্প-বাণিজ্যসহ বিভিন্ন খাতে বিশেষ অবদানের জন্য খ্যাতি অর্জন করেছেন। বর্তমান বাংলাদেশের সাবেক অধিবাসী ভারতের এসব গুণী বাঙালিদের তালিকা ও জন্মস্থান এখানে দেওয়া হল। বিস্তারিত