এই দিনে

ইতিহাসে এই দিনে : ২৯ জুলাই
বাংলাদেশ

২৯ জুলাই ২০০৬

Bangladesh

এরশাদের দুর্নীতি মামলা তোলার এখতিয়ার সরকারের নেই

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের বিরুদ্ধে বিচারাধীন দুর্নীতির মামলা প্রত্যাহারের কোন এখতিয়ার সরকারের নেই। দুর্নীতি দমন কমিশন প্রতিষ্ঠার পর ২০০৪ সালের ১২ জুলাই আইন সংশোধন করে সংসদ এ ক্ষমতা কমিশনের ওপর অর্পণ করে। একই বছরের ৭ ডিসেম্বর এক প্রজ্ঞাপন জারি করে ওই সংশোধন আইন কার্যকর করা হয়। এদিকে দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, এরশাদের দুর্নীতির মামলা প্রত্যাহার করে কমিশনের ভাবমূর্তি বিনষ্টের দায়িত্ব তারা নেবে না। ২০০৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি সংসদ দুর্নীতি দমন কমিশন আইন প্রণয়ন করে। ওই আইনে কমিশনকে একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা এবং সরকারের যেকোন ধরনের নিয়ন্ত্রণমুক্ত রাখা হয়। কমিশনকে অধিকতর শক্তিশালী ও কার্যকর করতে ২০০৪ সালের ১২ জুলাই “ক্রিমিনাল ল’ এ্যমেন্ডমেন্ট ১৯৫৮” সংশোধন করা হয়। প্রসঙ্গত ১৯৫৮ সালের আইনে “যেকোন দুর্নীতির মামলা প্রত্যাহারের ক্ষেত্রে আদালতে আবেদন জানানোর জন্য সরকারকে ক্ষমতা দেয়া হয়।

বৃষ্টি উপেক্ষা করে পঞ্চম দিনের পদযাত্রায় বিপুল সংখ্যক মানুষের অংশগ্রহণ

প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেও গতকাল শনিবার রাজধানীতে আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের পদযাত্রা কর্মসূচি সফলভাবে পালিত হয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও নির্বাচন কমিশন সংস্কারের দাবি এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের আকাশছোঁয়া মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ডাকা ছয় দিনের এ কর্মসূচির পঞ্চম দিবসে গতকাল বিকালে বাবুবাজার থেকে শুরু হয়ে পদযাত্রা মুক্তাঙ্গনে এসে শেষ হয়। এতে ১৪ দলের নেতা-কর্মী, সমর্থক ছাড়াও বিভিন্ন পেশাজীবী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধি এবং স্বতঃস্ফূর্ত হাজার হাজার মানুষ শরিক হয়। পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী পদযাত্রা শুরুর কথা ছিল বিকাল ৪টায়। কিন্তু প্রবল বর্ষণ উপেক্ষা করে তা বাবুবাজার মোড় থেকে বিকাল পৌনে পাঁচটায় নির্ধারিত গন্তব্য অভিমুখে যাত্রা করে। প্রায় আধ ঘন্টা সময়ের মধ্যে পদযাত্রার অগ্রভাগ মুক্তাঙ্গনে পৌঁছে। গতকালের এই ধারাবাহিক কর্মসূচি পালিত হয় অনেকটা উৎসবমুখর পরিবেশে। পদযাত্রা উপলক্ষে বাবুবাজার মোড় ও নয়াবাজারে পৃথক দু’টি মঞ্চ তৈরি করা হয়।

২৯ জুলাই ২০০৭

Bangladesh

সংস্কার : পুলিশ কমিশন কমপ্লেইন কমিশন ও ট্রাইব্যুনাল হচ্ছে

বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার যুগের সঙ্গে তাল দিয়ে পুলিশ প্রশাসন সংস্কার করার উদ্যোগ নিয়েছে। পুলিশ প্রশাসনকে দক্ষ গতিশীল, জবাবদিহিতা, দলীয় প্রভাবমুক্ত, দুর্নীতি অনিয়মের সঙ্গে জড়িত থাকলে কঠোর ব্যবস্থা ও কর্মোদ্দীপ্ত করার লক্ষ্যে সার্বক্ষণিক নজর রাখার জন্য জাতীয় পুলিশ কমিশন, পুলিশ কমপ্লেইন কমিশন ও সশস্ত্র বাহিনীর আদলে পুলিশ ট্রাইবুনাল গঠনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। পুলিশের নিরপেক্ষ ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধার, জনগণের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করতে জাতীয় পুলিশ কমিশন, কমপ্লেইন কমিশন ও ট্রাইবুনাল বিশেষ ভূমিকা রাখবে। অপরদিকে পুলিশ সার্ভিসের সার্বিক কার্যক্রমের ওপরও নজর রাখবে। পুলিশের আইজি নূর মোহাম্মদ বলেছেন, জাতীয় পুলিশ কমিশন, কমপ্লেইন কমিশন ও পুলিশ ট্রাইবুনাল গঠিত হলে যে সরকার ক্ষমতা আসবে তাদের পক্ষে পুলিশের ওপর দলীয় প্রভাব ফেলতে সুযোগই থাকবে না। পুলিশের দুর্নীতি, অনিয়ম ও ঘুষ গ্রহণ বন্ধ এবং সঠিক দায়িত্ব পালন নিশ্চিত হবে বলে আইজিপি জানান। এই সংস্কারের মধ্যে পুলিশের শীর্ষ পদের পরিবর্তন আসবে। আইজিপির পদ হবে পুলিশ প্রধান (চীফ অব পুলিশ) এবং অতিরিক্ত আইজিপি হবেন আইজিপি। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে এই সকল সংস্কারের প্রস্তাব চূড়ান্ত করা হয়েছে। পুলিশের এই সকল সংস্কার প্রস্তাবসমূহ অনুমোদনের জন্য শীর্ষ প্রশাসনে ইতিমধ্যে প্রেরণ করা হবে।

২৯ জুলাই ২০১৫

Bangladesh

 

জন্ম

Hasan-Imam

সৈয়দ হাসান ইমাম
(২৯ জুলাই, ১৯৩৫ -)
অভিনেতা,আবৃত্তিকার

হাসান ইমাম মাত্র দুই বছর বয়সে তাঁর বাবাকে হারান।সৈয়দ হাসান ইমামের শিক্ষাজীবন শুরু হয় বর্ধমান টাউন স্কুলে । তারপর তিনি অধ্যয়ন করেন ১৯৫২ সাল থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত রাজ কলেজ ও ১৯৫৪ সালে থেকে ১৯৫৭ সাল পর্যন্ত টেকনিক্যাল কলেজে। [২] তিনি ১৯৫৭ সালে বাংলাদেশে ফিরে করেন। সৈয়দ হাসান ইমাম রাজ কলেজের সাংস্কৃতিক সম্পাদক, কমনরুম সম্পাদক নিযুক্ত হন। বর্ধমান জেলা গণনাট্য সংঘের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন সৈয়দ হাসান ইমাম মাত্র ১৬ বছর বয়সে ।ছাত্রজীবনে ১৯৫২ সালে অল ইন্ডিয়া ইয়ুথ ফেস্টিভালে তিনি রবীন্দ্রসংগীতে প্রথম স্থান পেয়েছিলেন।

সৈয়দ হাসান ইমাম ১৯৫৭ সালে ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক অব পাকিস্তানে যোগ দেন। ১৯৬০ সাল থেকে হাসান ইমামের অভিনয় জীবন শুরু হয়। ১৯৬০ সাল থেকে তিনি চলচ্চিত্রে এবং ১৯৬৪ সাল থেকে টেলিভিশনে অভিনয় শুরু করেন। [২] তাঁর প্রথম দিকের ছবির মধ্যে রাজা এল শহরে, শীত বিকেল, জানাজানি, ধারাপাত ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। ১৯৬৫ সালে সমগ্র পাকিস্তানের চলচ্চিত্র উৎসবে হাসান ইমাম শ্রেষ্ঠ অভিনেতার সম্মান লাভ করেন খান আতাউর রহমানের অনেক দিনের চেনা ছবিতে অভিনয়ের জন্য। ১৯৭১ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে হাসান ইমামকে আহ্বায়ক করে গঠিত হয় শিল্পীদের প্রতিবাদী সংগঠন বিক্ষুব্ধ শিল্পী সমাজ যারা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে পাকিস্তান বেতার ও টেলিভিশনের অনুষ্ঠান বর্জন করেন। গণআন্দোলনের চাপে পাকিস্তানী সরকার ৮ মার্চ থেকে বেতার টেলিভিশনের দায়িত্ব বিক্ষুব্ধ শিল্পী সমাজের হাতে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। ২৫ মার্চের পর হাসান ইমাম মুজিব নগরের চলে যান এবং মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়ে ১৯৭১-এ স্বাধীনবাংলা বেতার কেন্দ্রের নাট্য বিভাগের প্রধানের দায়িত্বে নিযুক্ত হন। সৈয়দ হাসান ইমাম জাহানারা ইমামের মৃত্যুর পর বাংলাদেশের প্রধান মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও ঘাতক দালাল নির্মূল জাতীয় সমন্বয় কমিটি’-এর আহ্বায়কের দায়িত্ব পান। ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায় আসায় হাসান ইমাম দেশত্যাগে বাধ্য হন।

সূত্র: বাংলাপিডিয়া

 
বহির্বিশ্ব
India

২০১৫: ‘আফ্রিকার নেতারা ক্ষমতা না ছাড়লে গণতন্ত্র আসবে না’

আফ্রিকা সফর শেষ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। সফরকালে তিনি বলেন, ‘শুধু নির্বাচন অনুষ্ঠানই গণতন্ত্র নয়। আফ্রিকার নেতারা যদি মেয়াদ শেষে ক্ষমতা ছাড়তে না চান, তাহলে প্রকৃত গণতন্ত্র আসবে না।’ স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবায় আফ্রিকান ইউনিয়নের (এইউ) সদর দফতরে বক্তৃতাকালে ওবামা এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

সংস্থাটিতে এই প্রথমবারের মতো কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট বক্তব্য রাখেন। এর আগে তিনি অপর আফ্রিকান দেশ নিজ পিতৃভূমি কেনিয়া সফর করেন। ৫৪ সদস্য বিশিষ্ট আফ্রিকান ইউনিয়নে বক্তৃতাকালে ওবামা মেয়াদ শেষের পরেও যেসব নেতারা ক্ষমতা আঁঁকড়ে রেখেছেন তাদের সমালোচনা করে বলেন, ‘আমি বুঝি না এত অর্থবিত্ত উপার্জনের পরও কেন তারা ক্ষমতা ছাড়তে চান না।’ তিনি সংবিধানের প্রতি সম্মান দেখিয়ে নির্ধারিত মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য এইউ নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

 
দেশেবিদেশে : আজকের ছুটির দিন ও উদযাপনা

Norway : Olsok Eve Festival (1030)

 
আজকের উদ্ধৃতি

‘ দেশ চলছে ভারত-বাংলাদেশের গোয়েন্দাদের যৌথ প্রযোজনায়। বর্তমান সরকারের সব আয়োজনই প্রতিবেশি রাষ্ট্রের ভুড়িভোজের জন্য। বর্তমান সরকারের কোনো কর্মকাণ্ডই জনগণ বিশ্বাস করে না। কারণ এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়, ভিনদেশিদের দ্বারা নির্বাচিত। কখন না ভারত দাবি করে বসে বাংলাদেশের মালিক তোমরা না, আমরা।’
গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য (২৯ জুলাই, ২০১৬)


আজকের তারিখ ও এখনকার সময় (বাংলাদেশ)

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।